DMCA.com Protection Status
ADS

যুক্তরাষ্ট্রে নয়া অভিবাসন আইন: বৈধতা পেতে যা যা যোগ্যতা প্রমাণ করতে হবে

261220142047136063যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসীদের অধিকার রক্ষায় নতুন আইন করেছেন প্রেসিডেন্ট ওবামা। নতুন এই সুযোগ নিতে অভিবাসীদের অবশ্যই প্রমাণ করতে হবে তারা ২০১০ সালের ১ জানুয়ারি থেকে টানা যুক্তরাষ্ট্রে ছিলেন।

এইটি প্রমাণ করার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে হাজির করতে হচ্ছে তথ্য-উপাত্ত। তাই, জেনে নিন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঞ্চলে/অঙ্গরাষ্ট্রের অভিবাসীদের যোগ্যতা প্রমাণে কী কী প্রয়োজন:

 

যুক্তরাষ্ট্রের প্রশাসন পক্ষ থেকে এখনও নির্দিষ্টভাবে জানান হয়নি যে, কোন ধরণের ডকুমেন্ট তারা প্রমাণ হিসেবে গ্রহণ করবে। কিন্তু আইনজীবীরা নির্দেশনা নিচ্ছেন, যানবাহন নিবন্ধন, ব্যাপটিজম রেকর্ড, মর্টগেজ, ডাকমোহর দেওয়া চিঠি ইত্যাদি প্রমাণ হিসেবে গ্রহণ করা যেতে পারে।


লস এঞ্জেলস ইমিগ্রেশন এটর্নী শাস্টারম্যান তথ্য-উপাত্ত হিসেবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পোস্টগুলোকেও ব্যবহার করেন। ডিজনিল্যান্ডে তোলা ফেসবুক ছবিও এক্ষেত্রে কাজে লাগতে পারে।
 

তিনি বলেন, তথ্য-প্রমাণ হিসেবে ফেসবুক পোস্টই একমাত্র ভরসা নয়। কিন্তু কেউ যদি এখানে অবৈধভাবে থাকেন এবং নগদে বেতন পান, তাহলে তারপক্ষে প্রমাণ হাজির করা কঠিন। এমন অনেকেই আছে যারা পারিশ্রমিক সোশ্যাল সিকিউরিটির মধ্য পাননি। তাদের ক্ষেত্রে আপনি কি তথ্য-উপাত্ত চাইবেন?

 

ডেনভারের ইমিগ্রেশন এটর্নী লরা লিচার ব্যবহার করেছেন মুভি ভাড়ার রশিদ, পশুচিকিৎসকদের বিল, ক্রেতাদের লয়্যালিটি প্রোগ্রাম; যাতে ক্রয়-ইতিহাসের বর্ণনা থাকবে। তিনি বলেন, কোন ব্যক্তির হাতে যে ধরণের কাগজপত্রই থাকুক, তাই প্রমাণ হিসেবে ব্যবহার করুন। অবশ্য যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসন কর্তৃপক্ষ, এই ধরণের তথ্য-প্রমাণে প্রতারণার সুযোগ থাকতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করছে। চলতি মাসে স্বরাষ্ট নিরাপত্তা সচিব জে জনসন কংগ্রেস সদস্যদের জানান, আবেদনগুলোতে দুর্নীতির আশ্রয় নিলে, তা খুঁজে বের করায় আমরা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। আমাদের প্রতারণা বিরোধী ইউনিটগুলোকে আরও শক্তিশালী করা হচ্ছে।


অনেকে অবশ্য অভিবাসীদের আবেদনের বৈধতা যাচাইয়ের নতুন উপায়ও বাতলে দিয়েছেন।
২০১১ সালে অবসর নেওয়া সিটিজেনশিপ ও ইমিগ্রেশন সার্ভিস এন্টি-ফ্রড ইউনিটের প্রধান লুই ড. ক্রোসেট্টি জার বলেন, আবেদনকারীদের বারংবার সাক্ষাৎকার নেওয়া যেতে পারে। নির্দিষ্ট সময় অন্তর অভিবাসীদের বাড়িতেও খোঁজখবর নেওয়া যেতে পারে।

 

যুক্তরাষ্ট্র সরকারের পরিকল্পনা হল- ফেব্রুয়ারী মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে যোগ্য অভিবাসীদের আবেদন মঞ্জুর করা শুরু করবে। মে মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের বাবা-মা ও বৈধ অধিবাসীদের আবেদন মঞ্জুর শুরু করবে। সিটিজেনশিপ ও ইমিগ্রেশন সার্ভিস ডিরেক্টর লিও রডরিগেজ বলেন, আবেদন প্রক্রিয়া যাচাই-বাছাইয়ের জন্য এজেন্সি ১ হাজার অফিসার ভাড়া করবে। ভাড়া করা অফিসাররা কয়েক সপ্তাহের প্রশিক্ষণ পাবে।

 
যুক্তরাষ্ট্রে যারা অবৈধভাবে বসবাস করছেন অথচ তাদের সন্তান দেশটির নাগরিক; তাদের ক্ষেত্রে ভিন্ন নিয়ম অনুসরণ করবে দেশটির কর্তৃপক্ষ। এই ধরণের আবেদনকারীর ক্ষেত্রে তাদের সন্তানদের জন্মসনদের দরকার হবে। স্কুলের নম্বরপত্র, টিকার রেকর্ড, ব্যাংক স্টেটমেন্ট ইত্যাদিও চাওয়া হতে পারে।

Share this post

scroll to top
error: Content is protected !!