DMCA.com Protection Status
ADS

পাকিস্তানী যুদ্ধাপরাধীদের বিচারঃআমেরিকা ও ভারত বাংলাদেশের পাশে থাকলেই যথেষ্ট’:আনন্দবাজার

surrendar copy

ক্যাপ্টেন(অবঃ)মারুফ রাজুঃ  ‘যুদ্ধাপরাধী পাক সেনাদের বিচারের তোড়জোড় শুরু করছে বাংলাদেশ’–এই শিরোনামে ভারতের কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকা আজ একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সিমলা চুক্তির সময় অপরাধী ১৯৫ পাকিস্তানি সেনা কর্তাকে রেহাই না দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ভুট্টো। তিনি কথা রাখতে পারেননি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ​আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের অনুমোদন পেলেই বিচারের রাস্তা খুলবে। চীন যদি পাকিস্তানকে আগলে রাখে, তাতেও ক্ষতি নেই। আমেরিকা, ভারত বাংলাদেশের পাশে থাকলেই যথেষ্ট।

আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনটি এখানে তুলে ধরা হলো:

বাংলাদেশ সীমান্তে ত্রিপুরা, মেঘালয়, মনিপুরকে রাজ্যের পূর্ণাঙ্গ স্বীকৃতি দেওয়া হয় ১৯৭২ সালের ২০ জানুয়ারি। পাশে বাংলাদেশের জায়গায় যখন পূর্ব পাকিস্তান ছিল, তখন এটা হয়নি। বাংলাদেশের মুক্তির পর ভারতে তখনকার প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী সিদ্ধান্তটি নেন।

তার ছয় মাস পরই সিমলায় ইন্দিরা শীর্ষ বৈঠকে বসেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী জুলফিকার আলি ভুট্টোর সঙ্গে।

কাশ্মিরে শান্তি প্রয়াস অব্যাহত রাখতে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি হয় ৩ জুলাই। বাংলাদেশ নিয়েও দু’জনের মধ্যে কথা হয়। মুক্তিযুদ্ধের পর পাকিস্তানি সেনারা তত দিনে পাকিস্তানে ফিরে গিয়েছে। কিন্তু ইন্দিরা-ভুট্টো আলাচোনায় যুদ্ধাপরাধী পাক সেনার বিচারের কথা ওঠে।

চরম অপরাধী ১৯৫ পাকিস্তানি সেনা কর্তাকে রেহাই না দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন ভুট্টো।

ভুট্টোর এতটা নরম হওয়ার পিছনে একটা কারণ ছিল। বঙ্গবন্ধু মুজিবর রহমানকে বাগে আনতে শেষ চেষ্টা করেছিলেন তিনি।

‘স্কুপ ইনসাইড স্টোরিজ ফ্রম দ্য পার্টিশন টু দ্য প্রেজেন্ট’ বইতে সাংবাদিক কুলদীপ নায়ার লিখেছেন, একাত্তরের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার ছয় দিন পর ২৩ ডিসেম্বর পাকিস্তানের রাওয়ালপিন্ডিতে এক জরুরি বৈঠকে বাংলাদেশ-পাকিস্তানের মধ্যে ফেডারেশন গঠনের ভুট্টো চাপ দেন মুজিবকে।

এক কথায় সে প্রস্তাব উড়িয়ে দেন মুজিব। তিনি জানতেন, ১৯৬৩-তে যে মালয়েশিয়া-সিঙ্গাপুর ফেডারেশন গঠিত হয়েছিল, তার কী ভয়ঙ্কর পরিণতি হয়েছিল।

১৯৬৫-তে ফেডারেশন ভেঙে পূর্ণ স্বাধীনতা নিয়ে সিঙ্গাপুর হাঁফ ছেড়ে বাঁচে। কথা দিলেও কথা রাখতে পারেননি ভুট্টো। সেনাবাহিনীর মর্জিতে তিনি প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়াটা ছিল ক্ষমতার বাইরে।

১৯৭৩-এর ১৪ আগস্ট সংবিধান সংশোধন করে সংসদীয় সরকার গড়ার প্রস্তাব গৃহীত হওয়ার পর ১৯৭৭-এর নির্বাচনে জিতে ফের প্রধানমন্ত্রী হন ভুট্টো। কিন্তু সেনার সমর্থন পাননি।

১৯৭৮-এ তার ফাঁসি হয়। দীর্ঘ দশ বছর পর তার কন্যা বেনজির ভুট্টো সাধারণ নির্বাচনে জিতে প্রধানমন্ত্রী হন।

এক বছর পর ১৯৮৯-তে রাজনৈতিক সদিচ্ছা নিয়েই বাংলাদেশ সফরে যান তিনি। বাংলাদেশের সঙ্গে কথাবার্তায় সব দাবি পূরণের ইচ্ছে প্রকাশ করেন তিনি। লাভ হয়নি। এক বছর পর তাকেও ছুঁড়ে ফেলে সেনাবাহিনীই। তাদের ইচ্ছায় প্রধানমন্ত্রী হন নওয়াজ শরিফ।

১৯৯৩-তে সেনাবাহিনীর চাপে তাকেও পদত্যাগ করতে হয়। নির্বাচনে ফের জয়ী হয়ে প্রধানমন্ত্রী হন বেনজির। ১৯৯৬-তে তাকে সরে যেতে হয়। ১৯৯৭-তে ফেরেন শরিফ।

১৯৯৯-তে জেনারেল পারভেজ মুশাররফ সামরিক অভ্যুত্থানে তাকে ক্ষমতাচ্যুত করেন। ২০০১-এ সামরিক শাসক থেকে রাষ্ট্রপতি হন মুশাররফ। ২০০৮ পর্যন্ত তিনি ক্ষমতায় ছিলেন। সেই বছর নির্বাচনে জিতে প্রধানমন্ত্রী হন ইউসুফ রাজা গিলানি। তিনিই পাকিস্তানের প্রথম প্রধানমন্ত্রী যিনি টানা পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকেন।

তার পরে ২০১৩ সালে তৃতীয় বার প্রধানমন্ত্রী হন শরিফ। এখনো তিনি পদাসীন। সেনাবাহিনীকে নিয়ন্ত্রণ করা এখনো তার সাধ্যের বাইরে। মুক্তিযুদ্ধে ১৯৫ পাকিস্তানি সেনাকর্তার বিচারের দাবি ফের তুলেছে বাংলাদেশ।

তদন্ত কমিটি গড়ে তাদের বিরুদ্ধে তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। শরিফের ওপর আস্থা রাখা যাচ্ছে না। জাতিসংঘের শরণাপন্ন হওয়ার কথা ভাবছে বাংলাদেশ।

পাকিস্তানের লেফটেন্যান্ট জেনারেল নিয়াজির বিরুদ্ধে অভিযোগ, ৫০ নারীকে ভোগ্যবস্তু করে তুলেছিলেন তিনি। বুদ্ধিজীবী হত্যার খলনায়কও তিনি।

একই অভিযোগে কাঠগড়ায় জেনারেল রাও ফরমান আলি, মেজর জেনারেল হোসেন আনসারি, কর্নেল ইয়াকুব মালিক, কর্নেল শামস, মেজর আবদুল্লাহ খান, মেজর খুরশিদ ওমর, ক্যাপ্টেন আব্দুল ওয়াহিদ। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের অনুমোদন পেলেই বিচারের রাস্তা খুলবে।

চীন যদি পাকিস্তানকে আগলে রাখে, তাতেও ক্ষতি নেই। আমেরিকা, ভারত বাংলাদেশের পাশে থাকলেই যথেষ্ট।

Share this post

scroll to top
error: Content is protected !!