DMCA.com Protection Status
ADS

যশোরে দুই যুবদল কর্মীকে হত্যা করে পরে সন্ত্রাসী সন্দেহে ট্রাক চাপায় নিহতের গল্প ফাঁদলো পুলিশ

2014যশোর জেলার মণিরামপুর পুলিশ সোমবার দিবাগত রাতে যুবদলের দুই কর্মীর লাশ আনে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এরা পেট্রোলবোমা ছুড়তে গিয়ে ট্রাক চাপায় মারা পড়েছে। তবে নিহতদের স্বজনদের দাবি তাদেরকে বাড়ি থেকে পুলিশ পরিচয়ে তুলে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।

কারন গনমাধ্যমে প্রচারিত ছবিতে এই দুই যুবকের মাথা ছাড়া শরীরের অন্য কোন স্থানে আঘাতের চিন্হ পাওয়া যায়নি,সাধারনত গাড়ী চাপায় মৃতের দেহের ছিন্ন বিচ্ছিন্ন অংশই পাওয়া যায় ।সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় হলো পুলিশের দেয়া তথ্য অনুযায়ী দূর্ঘটনার সময় এ দুই যুবক চলমান মোটর সাইকেলে ছিল ,কিন্তু ট্রাক চাপায় তাদের বিধ্ধস্ত মোটরসাইকেল টির কোন হদিস পাওয় যায়নি।


যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, সোমবার রাত চারটা ১০ মিনিটে মণিরামপুর থানার এএসআই তাসনিম লাশ দুটি বহন করে নিয়ে আসেন। মণিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা খবিরউদ্দিন বলেন, ‘রাত সোয়া তিনটার দিকে আমরা খবর পাই, যশোর-মণিরামপুর সড়কের বেগারিতলায় দুর্ঘটনা ঘটেছে। সেখানে গিয়ে দেখতে পাই, অজ্ঞাত দুই যুবকের মৃতদেহ পড়ে আছে। পাশেই পেট্রোলবোমা পড়ে থাকতে দেখি।

স্থানীয় লোকজন আমাদের জানায়, ওই দুই যুবক একটি ট্রাকে পেট্রোলবোমা ছুড়ে পালানোর সময় ট্রাক চাপায় মারা গেছে। ফায়ার সার্ভিস কর্মী ও পুলিশ লাশ দুটি যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়।’ মণিরামপুর পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট শহীদ ইকবাল নিহত যুবকদ্বয়ের পরিচয় নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, নিহত দু’জন হলো- মণিরামপুর উপজেলার তাহেরপুর গ্রামের আবদুল আজিজের ছেলে ইউসুফ এবং দুর্গাপুর গ্রামের আতিকের ছেলে লিটন। এরা দু’জনই যুবদল কর্মী বলে তিনি নিশ্চিত করেন।

মেয়র শহীদ ইকবাল আরও বলেন, ‘সোমবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে মণিরামপুর কলেজের কাছে একটি গাড়িতে বোমা মারে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা। এ ঘটনার পর পরই পুলিশ ইউসুফ ও লিটনকে আটক করে বলে এলাকাবাসী জানতে পারে। আজ সকালে শুনি, পুলিশ দু’জনকে মৃত অবস্থায় যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেছে।’ মণিরামপুর থেকে পুলিশ দুটি লাশ এনেছে বলে খবর পেয়ে সংবাদকর্মীসহ অনেকেই মর্গে যান।

তারা ওই দুই যুবকের মৃত্যুকে ‘রহস্যজনক’ বলছেন। যুবকদ্বয়ের মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে তারা জানান। তাদের ধারনা কে বা কারা হকস্টিক দিয়ে পিটিয়ে যুবকদ্বয়কে হত্যা করে দূর্ঘটনা বলে চালিয়ে দিচ্ছে। প্রসঙ্গত, সোমবার রাতে মণিরামপুর ডিগ্রি কলেজের কাছে একটি মাছবাহী পিকআপ ভ্যানে পেট্রোলবোমা ছোড়ে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা। যে জায়গা থেকে অজ্ঞাত দুই যুবকের লাশ আনা হয়েছে, তা মণিরামপুর কলেজের খানিকটা দূরে।

Share this post

scroll to top
error: Content is protected !!