DMCA.com Protection Status
ADS

তারেক রহমানের বক্তব্য প্রচার করায় একুশে টিভি হারালেন সালাম

ETVক্যাপ্টেন(অবঃ)মারুফ রাজুঃ শেষ পর্যন্ত শুধুমাত্র ব্যক্তিগত আক্রোশের কারনে মান সন্মান এমনকি নিজ হাতে গড়া বাংলাদেশের ১ম বেসরকারী টেলিস্টেরিয়াল টিভি চ্যানেল একুশে টিভির মালিকানাও হারালেন এককালে হাসিনার প্রিয়পাত্র আবদুস সালাম ।

অথচ তিনি অনড় ছিলেন কারাভোগ ও সব ধরনের অত্যাচার সহ্য করবেন কিন্তু নিজের স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল একুশে টিভির (ইটিভি) মালিকানা ছাড়বেন না। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। তিন আইনে দুই মামলায় কারাগারের বন্দী থাকা অবস্থায় ইটিভির মালিকানা হারালেন আলোচিত ব্যবসায়ী আব্দুস সালাম।

প্রতিষ্ঠানটির সার্বিক স্বত্ব কিনে নিয়েছে চট্টগ্রামের এস আলম গ্রুপ। ইটিভির সাবেক চেয়ারম্যান আবদুস সালাম গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে কারান্তরীণ। বর্তমানে কারাবন্দী অবস্থায় বারডেমে চিকিৎসাধীন আছেন।

লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বক্তব্য সরাসরি প্রচারের পর চলতি বছরের ৫ জানুয়ারি মধ্যরাতের পর (৬ জানুয়ারি শুরু) ইটিভি কার্যালয়ের নিচ থেকে সালামকে আটক করে সাদা পোশাকের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। আটকের কথা প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) স্বীকার করে।

রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানায় পর্নোগ্রাফি আইনে দায়ের করা একটি মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে ৬ জানুয়ারি চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে হাজির করা হয়।

আদালত থেকে সরাসরি কারাগারে পাঠানোর পর ৮ জানুয়ারি ওই মামলায় সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করা হলে আদালত নামঞ্জুর করেন।

এদিকে সরকারের সরাসরি তত্বাবধানে নভেম্বরের ২৫ তারিখ ইটিভি নতুন মালিকানায় চলে যায়। সেদিনই অনুষ্ঠিত হয় বোর্ড সভা। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গঠিত নতুন পরিচালনা পর্ষদে চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন এস আলম গ্রুপের স্বত্বাধিকারী মোহাম্মদ সাইফুল আলম মাসুদ ।

এ ছাড়া ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্ব নিয়েছেন আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ড. আবদুস সোবহান গোলাপ।

ভাইস চেয়ারম্যান হয়েছেন আবদুস সামাদ। বোর্ড সভার মাধ্যমে চ্যানেলটির ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ গুরুত্বপূর্ণ পদে নিয়োগ দেয়া হয়। পরিচালক পদে কে এম শহীদ উল্লাহ, সুব্রত কুমার ভৌমিক, সাব্বির বিন শামসু ও রবিউল হাসান। সমাজকল্যাণ পরিচালক হিসেবে ফারজানা পারভীন এবং চট্টগ্রাম ও মার্কেটিং অ্যাসোসিয়েট সমন্বয়কারী হিসেবে মোহাম্মদ মোর্শেদ দায়িত্ব পালন করছেন।

সালাম যেভাবে আউট:

মালিকানা পরিবর্তনের পর একুশে টেলিভিশনের নতুন কর্তৃপক্ষ গণমাধ্যমকে বিস্তারিত জানিয়েছিলেন। তাদের কথা, অর্থঋণ আদালত আইন, ২০০৩-এর ১২ ধারা অনুযায়ী আদালতের নির্দেশক্রমে ২০১৫ সালের ৮ অক্টোবর ইটিভির নিলাম হয়। নিলাম প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে এস আলম গ্রুপ কর্তৃপক্ষ একুশে টেলিভিশন লিমিটেডের শেয়ার, ট্রেডমার্ক, সার্ভিস মার্ক, লোগো ইত্যাদিসহ সব কিছু কিনে নিয়েছে।

নতুন মালিকানায় ইটিভি: মালিকানা পরিবর্তনের পরপরই নতুন ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ সকল কর্মরতদের ১০ শতাংশ বেতন বাড়ানোর ঘোষণা দেন। বেতন বাড়ানো হলেও বিরাজ করছে অনিশ্চয়তা। ছাঁটাই আতঙ্কে দিন কাটছে অনেকের। ইটিভির একাধিক সংবাদকর্মী জানিয়েছেন, কোনো কারণ ছাড়াই সংবাদকর্মীসহ অন্যদের এক বিভাগ থেকে অন্য বিভাগে বদলি করা হয়েছে। অনেককেই অন্য কোথাও চাকরি খুঁজতে মৌখিকভাবে বলা হয়েছে।

ফ্ল্যাশব্যাক: ইটিভির সাবেক চেয়ারম্যান আবদুস সালাম ৬ জানুয়ারি থেকে কারাগারে রয়েছেন। জানুয়ারির ৪ তারিখ রাতে লন্ডনে অনুষ্ঠিত একটি সভায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫০ মিনিটের একটি বক্তব্য ইটিভিতে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।

এরপর ৫ জানুয়ারি মধ্যরাতের পর ইটিভি কার্যালয়ের নিচ থেকে গোয়েন্দা পুলিশ আবদুস সালামকে আটক করে। বিদ্রোহ ও রাষ্ট্রদ্রোহ: ‘উসকানি দিয়ে পুলিশে বিদ্রোহের চেষ্টা’ ও রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে আবদুস সালাম ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ৮ জানুয়ারি পুলিশ বাদী হয়ে তেজগাঁও থানায় মামলা দায়ের করে। ইটিভিতে তারেক রহমানের ভাষণ সরাসরি প্রচারের পর পুলিশ ৭ জানুয়ারি তেজগাঁও থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করে। এর ভিত্তিতে পুলিশ রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করে।

মন্ত্রণালয় একদিনের মাথায় ৮ জানুয়ারি মামলার অনুমোদন দেয়। এসআই বোরহান উদ্দিন বাদী হয়ে তেজগাঁও থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় তারেক ও সালাম ছাড়া অজ্ঞাতনামা আরও চার-পাঁচজনকে আসামি করা হয়।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, তারেক রহমানের সঙ্গে পারস্পরিক যোগসাজশে আব্দুস সালাম পরিকল্পিতভাবে তারেক রহমানের মিথ্যা বানোয়াট ভিত্তিহীন উস্কানিমূলক ও বিভ্রান্তিকর বক্তব্য সরাসরি তার টেলিভিশন চ্যানেল একুশে টিভিতে প্রচার করেন।

ওই বক্তব্য প্রচারের উদ্দেশ্য ছিল দেশের সার্বভৌমত্ব এবং দেশের সেনাবাহিনী, বিজিবি ও পুলিশ বাহিনীর মধ্যে অসন্তোষ ও বিদ্বেষ ছড়ানো।

Share this post

scroll to top
error: Content is protected !!