DMCA.com Protection Status
ADS

আজ রেলমন্ত্রী মুজিবুল হকের বিয়ে , বরযাত্রী ৬ মন্ত্রী ও অর্ধশতাধিক এমপি

96624_1রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক মুজিবের বিয়ে হবে আগামীকাল শুক্রবার। এ বিয়ের আয়োজন নিয়ে বর, কনের স্বজন এবং কুমিল্লা আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা উৎফুল্ল। বর যাত্রী হবেন নৌ-মন্ত্রী শাহজাহান খানসহ ছয় মন্ত্রী এবং অর্ধ শতাধিক এমপি।

কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার মীরাখোলা গ্রামে রেলমন্ত্রীর বিয়ের অনুষ্ঠান হবে। সকাল ১১টায় ঢাকার বেইলি রোডের বাসা থেকে রেলমন্ত্রী যাত্রা করবেন। তার পরনে থাকবে মেরুন রঙের শেরওয়ানী।


বিয়ে পড়াবেন স্থানীয় গল্লাই ইউনিয়নের ম্যারেজ রেজিস্ট্রার মাওলানা সিদ্দিকুর রহমান। কুমিল্লা মহানগরী, চৌদ্দগ্রাম ও ঢাকা মিলে সাত শতাধিক বর যাত্রী যাবেন। কনের বাড়িতে উভয় পক্ষ মিলে দেড় হাজার মানুষের খাবার আয়োজন করা হয়েছে।বর যাত্রীরা চান্দিনার কাছে এসে জুমার নামাজ আদায় করবেন। ২টায় তারা কনের বাড়িতে পৌঁছবেন। বাড়ির সামনে তিনটি তোরণ করা হয়েছে। বাড়ির নিকটের তোরণে বরকে অভ্যর্থনা জানোবেন কনের বাড়ির শিশুরা।

বৃহস্পতিবার কনের গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, কাঁচা রাস্তায় ইটের সলিংয়ের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। বর বসার মঞ্চ সাজানোর কাজও চলছে। বাড়ির সামনে আলোক সজ্জা করা হয়েছে। চলছে রান্নার আয়োজন। কনের বাড়িতে দূর থেকে লোকজন এসে ভিড় করেছেন কনেকে দেখতে।

কনে পক্ষের বিয়ের আয়োজনের সমন্বয়কারী কুমিল্লা উত্তর জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি লুৎফুর রেজা খোকন জানান, বিয়েতে বর যাত্রী হিসেবে অর্ধ শতাধিক মন্ত্রী ও এমপি আসতে পারেন। দেড় হাজার অতিথি আপ্যায়নে আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে। বিয়ের দেনমোহর এখনো নির্ধারিত হয়নি বলে জানান তিনি।

এদিকে রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক সাংবাদিকদের জানান, দেরিতে বিয়ে করে আমি ডাবল আনন্দ উপভোগ করছি। দেন মোহর কত হবে তা জানাননি তিনি। তবে তাৎক্ষণিক দেনমোহর পরিশোধ করার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান।

চৌদ্দগ্রাম উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রাশেদা আখতার জানান, রেলমন্ত্রী সারা জীবন মানুষের জন্য অনেক কাজ করেছেন। ১০টাকা রোজগার করলেও তা নেতা-কর্মীদের নিয়ে খেয়েছেন। নিজের সুখ-শান্তির দিকে তাকাননি। দেরিতে হলেও তার বিয়ের সিদ্ধান্তে আমরা আনন্দিত।

বর পরিচিতি

রেলমন্ত্রীর গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার বসুয়ারা গ্রামে। ১৯৪৭ সালে ৩১ মে চৌদ্দগ্রাম উপজেলার বসুয়ারার এক সম্ভ্রান্ত বংশে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। পিতা মৃত রজ্জব আলী। মাতা মৃত সোনাবান বিবি। আট ভাই ও এক বোনের মধ্যে মুজিবুল হক সবার ছোট।

উত্তর পদুয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শিক্ষা লাভের পর মুজিবুল হক কাশিনগর বি.এম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এস.এস.সি পাশ করেন ১৯৬৬ সালে। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে তিনি ১৯৬৮ সালে এইচএসসি এবং ১৯৭০ সালে বিকম পাশ করেন। তিনি বর্তমানে কুমিল্ল¬া দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক।

কনের পরিচিতি 

কনে হনুফা আক্তার রিক্তা মীরাখোলা গ্রামের সম্ভ্রান্ত মুন্সী বাড়ির মৃত আবদুল হাবিব উল্লাহ মুন্সীর ২ ছেলে ও ৫ মেয়ের মধ্যে সবার ছোট। ১৯৮৫ সালের ২০ মে তিনি জন্মগ্রহণ করেন।

তিনি কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে চান্দিনা আবেদা নূর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২০০১ সালে এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৩.৫০ পেয়ে উত্তীর্ণ হন। বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড, ঢাকার অধীনে আবেদা নূর উচ্চ মাধ্যমিক বিজনেস ম্যানেজমেন্ট ইন্সটিটিউট থেকে ২০০৩ সালে অনুষ্ঠিত এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৩.৬৩ পেয়ে উত্তীর্ণ হন।

চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজ থেকে ২০০৬ সালে অনুষ্ঠিত বিএ পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে উত্তীর্ণ হন রিক্তা। পরবর্তীতে ঢাকায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স ডিগ্রি লাভ করেন। পাশাপাশি তিনি ব্যাচেলর অব ‘ল (এলএলবি) পাস করেন। তার বড় ভাই নাছির উদ্দিন মুন্সী দুবাই প্রবাসী। ছোট ভাই আলাউদ্দিন মুন্সী সম্প্রতি মালদ্বীপ থেকে দেশে এসেছেন।

এদিকে ১৪ নভেম্বর সংসদ ভবনের এলডি হলে বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হবে। ৬ ডিসেম্বর রেলমন্ত্রীর গ্রামের বাড়ি চৌদ্দগ্রামের বসুয়ারায় আরেকটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। সংসদ ভবনের হলে সাড়ে ৩হাজার এবং চৌদ্দগ্রামের অনুষ্ঠানে ৩০হাজার মানুষকে দাওয়াত দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। আয়োজনের সমন্বয়ক করা হয়েছে রেলমন্ত্রীর নিজের ইউনিয়ন শ্রীপুরের চেয়ারম্যান শাহজালাল মজুমদারকে।

Share this post

scroll to top
error: Content is protected !!