DMCA.com Protection Status
ADS

মোদি কি শেষ কথাটা বলে ফেলেছেন?

1_75021ভারতের নয়া প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কি আসল কথাটি বলে ফেলেছেন? ষোড়শ লোকসভা নির্বাচনে বিজয় এবং প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেয়ার আগেই ২০ মে তিনি তথাকথিত 'বাংলাদেশী অনুপ্রবেশকারীদের' ঠেকাতে পৃথক একটি দফতর গঠন করার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি এরই মধ্যে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক সরকার গঠনের আমন্ত্রণ পেয়েছেন বটে; কিন্তু শপথ নেবেন ২৬ মে। কিন্তু এর আগেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র সচিবকে ডেকে তথাকথিত 'বাংলাদেশী অনুপ্রবেশকারীদের' নিয়ে একটি 'ব্লুপ্রিন্ট' তৈরি করার নির্দেশ দিয়েছেন।

একটি পৃথক দফতর করার কথাও তিনি বলেছেন, যাদের কাজ হবে আসাম, পশ্চিমবঙ্গ, ত্রিপুরায় 'অনুপ্রবেশ' ঠেকানো! কলকাতার দৈনিক বর্তমান এ সংবাদটি পরিবেশন করেছে। এ সংবাদটি যে খোদ কলকাতাতেই প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করবে এটা বলার আর অপেক্ষা রাখে না। কেননা নির্বাচনের আগে পশ্চিম বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি  নরেন্দ্র মোদির এ ধরনের বক্তব্যের কঠোর সমালোচনা করেছিলেন। এমনকি তিনি প্রকাশ্যে চ্যালেঞ্জও ছুড়ে দিয়েছিলেন।

 

এখন ক্ষমতা নেয়ার আগেই মোদি এ ধরনের একটি নির্দেশ দিলেন। এর ফলে একদিকে পশ্চিম বাংলার সঙ্গে কেন্দ্রের সম্পর্কের যেমন অবনতি ঘটবে, ঠিক তেমনি বাংলাদেশের সঙ্গেও সম্পর্কের অবনতি হতে বাধ্য। তবে খুব স্বাভাবিকভাবেই বাংলাদেশ সরকারের বক্তব্য আমরা এখন অব্দি পাইনি। প্রতিক্রিয়া না পাওয়ারই কথা।

কেননা ভারতে কোনো বাংলাদেশী অনুপ্রবেশকারী রয়েছে- এরকম তথ্য যেমন বাংলাদেশ সরকারের কাছে নেই, ঠিক তেমনি নেই ভারত সরকারের কাছেও। তাহলে 'বাংলাদেশী অনুপ্রবেশকারী' চিহ্নিত হবে কীভাবে? আমরা অতীতেও দেখেছি, বাংলা ভাষাভাষীদের বাংলাদেশী হিসেবে চিহ্নিত করে বাংলাদেশে পুশব্যাক করার একটি উদ্যোগ ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার নিয়েছিল, যা বড় বিতর্কের সৃষ্টি করেছিল। যুগ যুগ ধরে এ অঞ্চলের মানুষ পশ্চিমবঙ্গে যান।

সেখানে তাদের আত্মীয়স্বজন রয়েছেন। ১৯৪৭-পরবর্তী সময়ে অনেকে সেখানে চলে গেছেন স্থায়ীভাবে। তারা অনেক আগেই ভারতীয় নাগরিকত্ব অর্জন করেছেন। তিন-চার পুরুষ ধরে তারা সেখানে বসবাস করছেন। তাদের এখন বাংলাদেশী হিসেবে আখ্যায়িত করা হবে কোন যুক্তিতে? মোদি যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছেন, তা হচ্ছে উন্নয়ন। তার দৃষ্টি এখন এদিকে থাকা উচিত।

 

মোদি নিঃসন্দেহে একটি ইমেজ তৈরি করতে পেরেছেন। আর তার ইমেজটি হচ্ছে তিনি সারা ভারতে উন্নয়নের জোয়ার বইয়ে দেবেন। গুজরাটে যেভাবে তিনি উন্নয়ন ঘটিয়েছেন, ঠিক একইভাবে তিনি ভারতের সর্বত্র উন্নয়নের জোয়ার বইয়ে দেবেন। কিন্তু এতে করে কতটুকু তিনি সফল হবেন, এ প্রশ্ন আছে। কেননা এক গুজরাটকে দিয়ে সারা ভারতবর্ষকে বিচার করা যাবে না।

গুজরাটের আর্থসামাজিক পরিস্থিতি আর উড়িষ্যা কিংবা ঝাড়খন্ডের আর্থসামাজিক পরিস্থিতি এক নয়। ভারতের দরিদ্রতা একটা বড় সমস্যা। ২০১০ সালে দরিদ্রতা যেখানে ছিল ২৭.৫০ ভাগ, এখন তা বেড়েছে ৩৭.০২ ভাগে (২০১০)। ২০১৪ সালের রিপোর্ট নিলে দেখা যাবে, এ সংখ্যা আরও বেড়েছে। প্রতি বছর বয়স ৫ বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই ১৮ দশমিক ৩ লাখ শিশু মারা যায়। উত্তর প্রদেশে আর মধ্য প্রদেশে শিশু মৃত্যুর হার প্রতি ১ হাজারে ৯১ ও ৯২টি শিশু। ভারত বর্তমানে বিশ্বের তৃতীয় অর্থনীতি। আগামী ৩০ বছরের মধ্যে দ্বিতীয় অর্থনীতির দেশে পরিণত হলেও ভারতে ৫৩ ভাগ মানুষের কোনো টয়লেট সুবিধা নেই। যেখানে-সেখানে রাস্তাঘাটে তারা মূত্র পরিত্যাগ করে।

অথচ ৫৩ ভাগ মানুষের হাতে রয়েছে মোবাইল ফোন, ৪৭ ভাগ মানুষের রয়েছে টিভি, ৯ ভাগ মানুষের রয়েছে কম্পিউটার। শতকরা ৩৯ ভাগ মানুষের কোনো পাকঘর নেই। এ পরিস্থিতির পরিবর্তন আনার কাজটি খুব সহজ নয়। মোদি কতটুকু সফল হবেন, এ প্রশ্ন থাকবেই। একটি ক্ষুদ্র পরিসরে তিনি গুজরাটের অবকাঠামোতে পরিবর্তন এনে গুজরাটের উন্নয়ন সাধন করতে পেরেছিলেন। কিন্তু বৃহত্তর ভারতের প্রেক্ষাপটে বিষয়টি অত সহজ নয়। উপরন্তু ভারতে রাজ্যের সংখ্যা এখন ২৯টি। প্রতিটি রাজ্যেই বলা যেতে পারে আঞ্চলিক শক্তিগুলো ক্ষমতা পরিচালনা করছে। এসব দলের সঙ্গে বিজেপির সম্পর্ক যে ভালো, তা বলা যাবে না।

 

মোদি বিজয়ী হলেও তার সমস্যা এখন অনেক। উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় (আসন ২৫০), কংগ্রেস তথা ইউপিএর জোটের আসন ৮২। এনডিএ জোটের রয়েছে ৬১ আসন। কংগ্রেসের একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় তাদের সমর্থন না পেলে তিনি কোনো বিল পাস করাতে পারবেন না। তাই কংগ্রেসের সঙ্গে তাকে সহাবস্থানে যেতে হবে।

দ্বিতীয়ত, আঞ্চলিক দল তথা বিজেপিবিরোধী (মোট ১২ রাজ্য) রাজ্যগুলো কেন্দ্রের বিরোধিতা করলে তিনি উন্নয়নের যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, তা বাস্তবায়ন করতে পারবেন না। মুসলমানরা এক ধরনের আতঙ্কের মাঝে আছেন। তাদের আশ্বস্ত করতে হবে। এমন আইন তৈরি করার উদ্যোগ তিনি নেবেন না, যাতে মুসলমানরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। কংগ্রেসের পরাজয় ঘটেছে। নিঃসন্দেহে এর পেছনে কারণ রয়েছে। তবে রাহুল গান্ধীর জন্য এটা একটা বড় পরাজয়।

তিনি পারলেন না। তিনি তার দাদির মতো (ইন্দিরা গান্ধী) আবার কি 'লাইম লাইটে' ফিরে আসতে পারবেন? ১৯৭৭ সালে ক্ষমতা হারানো ইন্দিরা গান্ধী ফিরে এসেছিলেন ১৯৮০ সালে। তবে কংগ্রেস এখন রাহুলের পরিবর্তে প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকেও নেতৃত্বের সারিতে নিয়ে আসতে পারে। ভারতের মানুষ পরিবর্তন চেয়েছে। আর ষোড়শ লোকসভা নির্বাচনের মধ্য দিয়েই এ পরিবর্তনটুকু সাধিত হলো। কিন্তু মোদি যদি হঠকারী কোনো সিদ্ধান্ত নেন, তাহলে তাকে বিতর্কিত করবে মাত্র। রাহুল গান্ধী ও সোনিয়া গান্ধী পদত্যাগ করতে চেয়েছিলেন।

এটাই গণতান্ত্রিক সৌন্দর্য। একটি গণতান্ত্রিক সমাজে ভোটাররা যদি কোনো দলকে নির্বাচনে পরিত্যাগ করে, দলের নেতারা তখন সরে দাঁড়ান। কারণ তারা মনে করেন, জনগণ তাদের প্রণীত নীতি গ্রহণ করেনি। তাই সোনিয়া-রাহুল সরে দাঁড়াতে চেয়েছিলেন। কিন্তু দল তা গ্রহণ করেনি। এর অর্থ নেতৃত্ব সারিতে তারা থেকে যাচ্ছেন। কংগ্রেসের কাছে নেহেরু পরিবারের বাইরে কোনো বিকল্প নেই। মানুষ বারে বারে নেহেরু-গান্ধী পরিবারের ওপর আস্থা রেখেছে। মাঝখানে অতীতে কংগ্রেস ক্ষমতা হারিয়েও আবার ফিরে এসেছে।

 

ভারতের রাজনীতিতে কংগ্রেসের নাম অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িয়ে আছে। ভারতের দীর্ঘ ৬৬ বছরের রাজনীতিতে কংগ্রেস এককভাবেই ক্ষমতায় ছিল প্রায় ৫৪ বছর। এ ৫৪ বছরের মাঝে নেহেরু পরিবারের তিন প্রজন্ম ক্ষমতায় ছিলেন। নেহেরু নিজে, কন্যা ইন্দিরা গান্ধী, নাতি রাজীব গান্ধী। নেহেরু ক্ষমতায় ছিলেন ১৬ বছর ২৮৬ দিন। ইন্দিরা গান্ধী ক্ষমতায় ছিলেন দু'বার, ১৯৬৬ থেকে ১৯৭৭, আবার ১৯৮০ থেকে ১৯৮৪, নিজ দেহরক্ষীদের হাতে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত। প্রথমবার ছিলেন ১১ বছর ৫৯ দিন, আর দ্বিতীয়বার ৪ বছর ২৯১ দিন। আর রাজীব গান্ধী ছিলেন ১৯৮৪ থেকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত।

এর বাইরে কংগ্রেসের পক্ষ হয়ে ক্ষমতা পরিচালনা করে গেছেন (প্রধানমন্ত্রী) তিনজন। লাল বাহাদুর শাস্ত্রী ক্ষমতায় ছিলেন মাত্র ১ বছর ২১৬ দিন (১৯৬৪-১৯৬৬ জানুয়ারি)। আর তামিল টাইগারদের হাতে রাজীব গান্ধীর মৃত্যুর পর হঠাৎ করেই ক্ষমতা পান নরসীমা রাও (১৯৯১-এর ২১ জুন থেকে ১৯৯৬ সালের ১৬ মে)। এরপর নেহেরু পরিবারের বাইরে তৃতীয় ব্যক্তি হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেন মনমোহন সিং ২০০৪ সালের ২২ মে। মোদির ক্ষমতা গ্রহণের আগ পর্যন্ত তিনিই ছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী, ১০ বছর, দুই টার্ম।

আবার নেহেরু-গান্ধী পরিবারের হাতে ক্ষমতা চলে যাওয়ার একটি সম্ভাবনার জন্ম হয়েছিল। কিন্তু রাহুল গান্ধী ব্যর্থ হলেন। তবে নেহেরু-গান্ধী পরিবার ছাড়া যে কংগ্রেসের কোনো বিকল্প নেই, সেটা আবারও প্রমাণিত হলো। কংগ্রেসের বাইরে জনতা দল একবার (১৯৮৯), এর আগে জনতা পার্টি (১৯৭৭) এবং বিজেপি (১৯৯৬, ১৩ দিন, ১৯৯৮, ৫ বছর) ক্ষমতা পরিচালনা করেছে। তবে নিঃসন্দেহে এবারের বিজেপির সঙ্গে আগের বিজেপির তুলনা করা যাবে না। এবারের বিজেপি অনেক বেশি সাম্প্রদায়িক। তাই বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক নিয়ে এরই মধ্যে প্রশ্ন উঠেছে। প্রধানমন্ত্রী কিংবা খালেদা জিয়ার উচ্ছ্বাস প্রকাশ করার পরও প্রশ্ন থাকবে অনেক।

 

বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে প্রশ্ন আছে অনেকের। বাংলাদেশের অনেকেই মনে করেন, বিগত কংগ্রেস সরকার ঢাকার আওয়ামী লীগ সরকারকে গুরুত্ব দিয়েছিল বেশি। এখন বিজেপি সরকার কোনো দলকে নয়, বরং রাষ্ট্র পর্যায়ে সম্পর্ককে গুরুত্ব দেবে বেশি। এক কথায়, যেটা বলা যায়, তা হচ্ছে ভারতের পররাষ্ট্র নীতি পরিচালিত হয় তার জাতীয় স্বার্থের আলোকে।

ফলে নয়া সরকার তাদের জাতীয় স্বার্থের আলোকেই দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক পরিচালনা করবে। তাই সম্পর্কের ক্ষেত্রে পরিবর্তনের সম্ভাবনা ক্ষীণ। এ মুহূর্তে যা স্পষ্ট, তা হচ্ছে তিস্তার পানিবণ্টনের চুক্তিটি এখন অনির্দিষ্টকালের জন্য ঝুলে গেল। কেননা মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে কোনো ধরনের বিবাদে যাবে না কেন্দ্র। ছিটমহল বিনিময়ের সম্ভাবনাও ক্ষীণ। অতীতে বিজেপি এর বিরোধিতা করেছিল। ফলে ২০১১ সালে ঢাকায় একটি চুক্তি স্বাক্ষর, কংগ্রেসের কেবিনেটে তা অনুমোদন ও পরে ভারতীয় সংবিধান সংশোধনের জন্য তা রাজ্য সভায় উত্থাপিত হলেও বিজেপির আপত্তির কারণে তা ঝুলে গেছে। সংবিধান সংশোধন করা যায়নি।

এখন বিজেপি এ ব্যাপারে উদ্যোগ নেবে, তা মনে হয় না। এরই মধ্যে আসামের নির্বাচিত বিজেপির সংসদ সদস্য সর্বনন্দ সোনোওয়াল জানিয়ে দিয়েছেন, বিজেপি ছিটমহল বিনিময় করবে না। বলা ভালো, ১৬২টি ছিটমহল বিনিময়ের কথা। বাংলাদেশের ৭১১০ একর জমি ফেরত পাওয়ার কথা, যার একটা বড় অংশ আসামে। তাই আসাম সংসদ সদস্যের বিরোধিতা বোঝা যায়। মোদি অনেক কথা বলেছেন। ওটা ছিল নির্বাচনী স্টান্টবাজি।

ভোট পাওয়ার জন্য তিনি এটা ব্যবহার করেছেন। এখন ক্ষমতায় যাওয়া একজন প্রধানমন্ত্রী মোদির জন্য বিষয়টা অত সহজ হবে না। বাংলাদেশে ভারতের বড় স্বার্থ রয়েছে। ভারতের সাতবোন রাজ্যের উন্নয়নের জন্য বাংলাদেশের সহযোগিতা তার দরকার। উপরন্তু দারিদ্র্যবিমোচন ও উন্নয়নকে গ্রাম পর্যায়ে নিয়ে যেতে হলে 'বিদ্যুৎ কানেকটিভিটি' তার দরকার। সাতবোন রাজ্যের অতিরিক্ত বিদ্যুৎ তিনি দারিদ্র্যপীড়িত বিহারে নেবেন বাংলাদেশের ভেতর দিয়ে। সুতরাং বাংলাদেশকে তার আস্থায় নিতে হবে। অহেতুক 'অনুপ্রবেশকারী' বক্তব্য তুলে তিনি দু'দেশের মধ্যকার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ককে একটি প্রশ্নের মাঝে ফেলে দিয়েছেন।

 

তবে সত্যিকার অর্থে তিনি যদি উন্নয়নকে এখন অগ্রাধিকার দেন, তাহলে তাকে বাংলাদেশকেও সঙ্গে নিতে হবে। দ্বিপাক্ষিক নয়, বরং বহুপাক্ষিক দৃষ্টিকোণ থেকে যদি কোনো সিদ্ধান্ত নেন, তাহলে তিনি বাংলাদেশেও সমান জনপ্রিয় হবেন। এজন্য তিনি চার দেশীয় (ভারত-বাংলাদেশ-নেপাল-ভুটান) একটি পানি ব্যবস্থাপনার উদ্যোগ নিতে পারেন।

যাতে করে একদিকে তিনি বাংলাদেশের পানি সমস্যার সমাধান, অন্যদিকে দেশটির বিদ্যুৎ ঘাটতি কমানোরও উদ্যোগ নিতে পারেন। বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কে একটা বড় অন্তরায় হচ্ছে সে দেশের ব্যুরোক্রেসি। ভারতের ব্যুরোক্রেসি বাংলাদেশকে সমমর্যাদার দৃষ্টিতে দেখে না। এখন একজন দক্ষ প্রশাসক নরেন্দ্র মোদির কাছে ব্যুরোক্রেসি কতটুকু সুবিধা করতে পারবে-এটাই দেখার বিষয়। আমার ধারণা, সারা ভারতকে একটি 'গুজরাট মডেল' (বিশাল বড় রাস্তা ও সেইসঙ্গে অবকাঠামোগত উন্নয়ন, শিল্পায়ন, বিনিয়োগ, বিদ্যুৎ) এ পরিণত করার যে প্রতিশ্রুতি মোদি দিয়েছেন, তা বাস্তবায়ন করতে হলে তার বাংলাদেশকে সঙ্গে নিতে হবে।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী তো অভিনন্দন বার্তায় জানিয়ে দিয়েছেন, বাংলাদেশ হচ্ছে তার (মোদির) 'দ্বিতীয় বাড়ি'। এই 'দ্বিতীয় বাড়ি'র ধারণা মোদি হয়তো গ্রহণ করবেন না। তবে অতীতে ইউপিএ সরকার যেভাবে একটি বিশেষ দলকে 'প্রমোট' করত, মোদি বা তার উপদেষ্টারা এ কাজটি করবেন না। ফলে মোদির পররাষ্ট্র নীতিতে বাংলাদেশ অগ্রাধিকার তালিকায় তেমন একটা থাকবে না। রাষ্ট্র পর্যায়ে যে সম্পর্ক থাকে, সেরকম সম্পর্কই থাকবে।

বাংলাদেশের ব্যাপারে কোনো বিশেষ আগ্রহ থাকবে না মোদি সরকারের। যেমনটি ইউপিএ সরকার বাংলাদেশের সঙ্গে রাখত। বলতে দ্বিধা নেই, এ সম্পর্ক অনেকটা একপক্ষীয় হয়ে গিয়েছিল। ভারতের পাল্লাটা ছিল ভারি, বাংলাদেশ পেয়েছে কম। কোনো একটি ক্ষেত্রেও বাংলাদেশ তার 'প্রত্যাশা' পূরণ করতে পারেনি। এখন দেখতে হবে মোদি সরকারও তার পূর্বসূরি ইউপিএ সরকারের মতো আচরণ করে কিনা।

 

মোদি তার শপথ অনুষ্ঠানে সার্কভুক্ত দেশগুলোর সরকারপ্রধানদের আমন্ত্রণ জানিয়ে অন্তত একটি মেসেজ দিতে চেয়েছেন-তা হচ্ছে তিনি সার্কভুক্ত দেশগুলোকে গুরুত্ব দিচ্ছেন। এখন দেখতে হবে তার পররাষ্ট্র নীতিতে এর কতটুকু প্রতিফলন ঘটে। বাংলাদেশের সঙ্গে বিরাজমান সমস্যার একটা সুষ্ঠু সমাধান, পাকিস্তানের সঙ্গে সন্ত্রাস দমন নিয়ে যে বিতর্ক তার অবসান কিংবা শ্রীলঙ্কার সঙ্গে একটা আস্থার সম্পর্ক গড়ে তোলার একটি উদ্যোগ যদি মোদি নেন, তাহলে দিব্যি দিয়েই বলা যায়, আমরা আগামীতে নতুন এক দক্ষিণ এশিয়াকে দেখতে পাব। ভারতের উন্নয়নে একটি শক্তিশালী দক্ষিণ এশিয়া খুবই প্রয়োজন। কিন্তু ভারত যদি দক্ষিণ এশিয়ায় তার রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক আধিপত্য বজায় রাখে, তাহলে দক্ষিণ এশিয়ায় উত্তেজনা বৃদ্ধি পাবে মাত্র। সেক্ষেত্রে মোদির উন্নয়ন প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত হবে। মোদি দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন। তার এই দায়িত্ব গ্রহণকে আমরা স্বাগত জানাই।

 

Share this post

scroll to top
error: Content is protected !!