DMCA.com Protection Status
ঈদ মোবারক

গোলানে বোমা বিস্ফোরণের পর সিরিয়ায় ইসরাইলের হামলা

ইসরাইলের দখলকৃত গোলান মালভূমিতে টহলরত অবস্থায় রাস্তার পাশে পেতে রাখা বোমা বিস্ফোরণে চার সৈন্য আহত হওয়ার ঘটনায় বুধবার সিরিয়ার সামরিক স্থাপনাগুলোতে বিমান হামলা চালায় দেশটি। দেশটির সামরিক সূত্র একথা জানিয়েছে। অন্যদিকে ঐ হামলায় সশস্ত্র গ্রুপগুলোকে সহায়তা করায় 'সর্বোচ্চ মূল্য' দিতে হবে বলে আসাদকে সতর্ক করে দিয়েছেন দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী মোশে ইয়ালুন।

সামরিক সূত্র জানায়, ঘটনার ১২ ঘন্টা পর সিরিয়ার সামরিক হেডকোয়ার্টার, প্রশিক্ষণ এলাকা এবং গোলন্দাজ স্থাপনাগুলো লক্ষ্য করে বোমা হামলা চালানো হয়। দেশটির সামরিক বাহিনীর মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট কর্নেল পিটার লার্নার বলেছেন, মঙ্গলবার গোলানে বোমা হামলার ঘটনায় পরদিন সারারাত অব্দি বিমান হামলা চালানো হয়েছে। তিনি বলেন, টহলরত সেনারা সীমান্তের দিকে সন্দেহজনক গতিবিধি লক্ষ্য করেন। এসময় তারা ঘটনাটি অনুসন্ধান করতে গেলে বোমাটি বিস্ফোরিত হয়। লার্নার আরো বলেন, আহতদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এ ঘটনায় ইসরাইল দামেস্ককে দায়ী করেছে, যদিও গোলানের সিরিয়া অংশ আল-কায়েদাসহ বিভিন্ন বিদ্রোহীগোষ্ঠীর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। সিরিয়ার সেনাবাহিনী এ হামলার জন্য দায়ী। এটাই আমাদেরকে পাল্টা হামলা চালাতে উদ্বুদ্ধ করেছে বলে ঐ সামরিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

এদিকে দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়ালুন বলেছেন, যা ঘটেছে তার জন্য আসাদ সরকার সম্পূর্ণরূপে দায়ী বলে আমরা মনে করি। এছাড়া সন্ত্রাসীদের প্রতি সহযোগিতা যদি অব্যাহত থাকে,যারা ইসরাইলের জন্য ক্ষতিকর, এর জন্য তাদেরকে চরম মূল্য দিতে হবে। যারা আমাদের সার্বভৌমত্বকে লঙ্ঘন করবে অথবা আমাদের সেনা বা নাগরিকদের ওপর হামলা চালাবে আমরা তাদের সহ্য করব না। যেকোন সময় এবং যেকোন জায়গায় তাদের ওপর প্রতিশোধ চলবে, যেমন গতরাতে আমরা নিয়েছি-বলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী।

সিরিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থগিত

এদিকে সিরিয়া সরকারকে ওয়াশিংটন থেকে তাদের দূতাবাস এবং সকল ধরনের কূটনৈতিক মিশন দ্রুত সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্র্বে অবস্থানরত যে সকল সিরিয়ান কূটনৈতিক যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক নয় তাদেরকেও যুক্তরাষ্ট্র ত্যাগের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সিরিয়াবিষয়ক যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ দূত ড্যানিয়েল রুবিনস্টেইন এক বিবৃতিতে একথা জানান। -খবর সিনহুয়া

সিরিয়ায় গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়ার তিন বছর পর প্রেসিডেন্ট বাসার আল আসাদ যখন যুক্তরাষ্ট্র থেকে তার কূটনৈতিক কার্যক্রম সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিল তখন যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়াকে এই নির্দেশ দেয়। ওয়াশিংটনে সিরিয়ার দূতাবাসের বিরুদ্ধে অভিযোগ যে মাঝে মাঝে রাষ্ট্রদূত ছাড়া এবং নিম্নশ্রেণীর কর্মচারী দিয়ে দূতাবাস পরিচালনা করত। সিরিয়া সংকট নিরসনের জন্য ড্যানিয়েল রুবিনস্টেইন এই মাসের শেষের দিকে মধ্যপ্রাচ্য ভ্রমণে যাবেন। যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে বাসার আল আসাদ সরকার যদি ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়ায় তাহলে সিরিয়ার সাথে যুক্তরাষ্ট্র কূটনৈতিক সম্পর্ক চালিয়ে যাবে।

Share this post

scroll to top
error: Content is protected !!