DMCA.com Protection Status
ADS

আবার Banglanews24.com এর মিথ্যাচারঃ দেশনায়ক তারেক রহমানের উপর ভিত্তিহীন ও অসত্য প্রতিবেদন প্রকাশ

bn24 ক্যাপ্টেন(অবঃ)মারুফ রাজুঃ বাংলাদেশের বহুল প্রচারিত এবং বৃহৎ অনলাইন নিউজপোর্টাল Banglanews24.com আবার অসত্য প্রতিবেদন প্রকাশ করলেন।বসুন্ধরা  গ্রুপের মালিকানাধীন এং সরকার সমর্থক এ অনলাইন পত্রিকাটি ইতিপূর্বেও অসত্য ও উদ্দেশ্যমূলক সংবাদ পরিবেশনের অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছে।

গতকাল প্রকাশিত প্রতিবেদনটির শিরোনাম ছিলো',তারেকের ওপর ব্রিটিশ হোম অফিসের সতর্কতা'।

প্রতিবেদনের শুরুতেই দেশনায়ক তারেক রহমান বংলাদেশ থেকে  পলাতক হয়ে লন্ডনে অবস্থান করছেন  বলা হয়েছে যা কিনা সত্যের  অপলাপ ছাড়া  আর কিছুই নয়।কেনা জানে দেশনায়ক বাংলাদেশ থেকে  চিকিৎসার্থে প্যরোলে মুক্তি পেয়ে প্রায় ৭ বছর পূর্বে যুক্তরাজ্যে আসেন এবং  তখন থেকেই লন্ডনে বৈধভাবেই অবস্থান করছেন।

সংবাদ টিতে ব্রিটিশ হোম মিনিস্ট্রির সতর্কতামুলক চিঠির কথা বলা হলেও ঐ চিঠির কোন কপি দেয়া হয়নি।এমনকি বৃটিশ সরকারের ওয়েবসাইট ঘেটেও এতদসংক্রান্ত কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

যেখানে বাংলাদেশের চলমান ভয়াবহ পরিস্থিতিত উদ্বিগ্ন বৃটেনের প্রধানমন্ত্রী,মন্ত্রী,সাংসদগন এবং ,বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থার পক্ষ থেকে বাংলাদেশের ব্যাপারে বিবৃতি ও বক্তব্য দেওয়া হচ্ছে প্রতিনিয়ত,  সেই অবস্থায় দেশনায়ক তারেক রহমান তার নিজের দেশের এহেন পরিস্থিতিতে উদ্বিগ্ন ও চিন্তাযু্ক্ত হয়ে কোন মন্তব্য করতে পারবেন না এবং একারনে তাকে সতর্ক করবে বিট্রিশ হোম,কথাটি মোটেও বিশ্বাস যোগ্য নয়।বিশেষ করে তারেক রহমানের মা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া যে মানবেতর ভাবে নিজ কার্যালয়ে অবরুদ্ধ হয়ে আছেন গত দুমাস ধরে, তা সভ্য সমাজে চিন্তাও করা যায়না।

কোন প্রমান ছাড়া এধরনের মিথ্যা ও বানোয়াট প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে দেশনায়কের বিপুল জনপ্রিয়তায় ভীত হাসিনা সরকারের ইশারায় তা নিঃসন্দেহে বলা যায়।তাছাড়া আগামীর প্রধানমন্ত্রী দেশনায়ক তারেক রহমানের ভাবমূর্তি বিনষ্টের এ হীন চেষ্টা কখনও সফল হবে না।

 

banglanews24.com এ প্রকাশিত সংবাদ টি নীচে দেওয়া হলোঃ

তারেকের ওপর ব্রিটিশ হোম অফিসের সতর্কতা!

বিশেষ সংবাদদাতা

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

x

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

তারেক রহমান
তারেক রহমান
Decrease font Enlarge font
 

ঢাকা: বিএনপি’র সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান দেশ থেকে পলাতক হয়ে লন্ডনে অবস্থান করে ধারাবাহিকভাবে দেশবিরোধী যেসব কথা বলে আসছিলেন সেসব বন্ধ করতে এবার তার ওপর সতর্কতা জারি করা হয়েছে। 


খোদ ব্রিটিশ হোম অফিস এই সতর্কতা জারি করেছে বলে জানিয়েছে সূত্র। 


দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, তারেকের ওপর রাজনৈতিক নিষেধাজ্ঞাও আসতে পারে।


তারেক রহমান যখন দেশের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে একের পর এক বিষোদগার করে যাচ্ছিলেন, তখন থেকেই এই বিষয়টি গুরুত্ব পেতে থাকে বলে জানায় সূ্ত্র। 


ওই সময়ই, ব্রিটেনের বাংলাদেশি কমিউনিটিতে সহিংসতা উস্কে দেয়ার অভিযোগ এনে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ব্রিটিশ হোম সেক্রেটারি বরাবরে একটি পিটিশন দাখিল করে আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ, যুক্তরাজ্য।


আর ব্রিটেনে বসে রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে বাংলাদেশে সংঘটিত সব সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড তারেকের নির্দেশেই হচ্ছে এমন অভিযোগতো আগে থেকেই করে আসছিলেন আওয়ামী লীগের নেতারা।


সূত্র বলছে, তারেক কমিউনিটিতে সহিংসতা উস্কে দিচ্ছেন মর্মে প্রমাণ পেয়েই ব্রিটিশ হোম অফিস তাকে সতর্ক করে দিয়েছে।


‘কারো বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ উঠলে কি তার রাজনৈতিক কার্যক্রম হোম অফিস বন্ধ করে দিতে পারে?’, বাংলানিউজের পক্ষ থেকে জয়েন্ট কাউন্সিল ফর দ্য ওয়েলফেয়ার অ্যান্ড ইমিগ্র্যান্টস (জেসিডব্লিউআই) এর চিফ এক্সিকিউটিভ হাবিব রহমানের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, ‘মত প্রকাশের স্বাধীনতার প্রতি ব্রিটিশ সোসাইটি খুবই শ্রদ্ধাশীল। তবে সহিংসতা ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে উৎসাহ বার উস্কানি যোগানোর কাজ কেউ করলে রাষ্ট্র তা নিরুৎসাহিত করবে এটিই তো স্বাভাবিক’। 


ওয়ান ইলেভেনের ফসল যে তত্ত্বাবধায়ক সরকার, সেই সরকারের আমলে প্যারোলে মুক্তি পেয়ে চিকিৎসার কথা বলে লন্ডনে চলে যান তারেক রহমান। এরপর অনেক দিন নীরব ছিলেন তিনি। যে পাসপোর্ট নিয়ে লন্ডন পৌঁছান তার মেয়াদও শেষ হয় ২০১৩ সালে। 


লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনের একজন কর্মকর্তার দেওয়া তথ্যমতে মেয়াদ শেষ হওয়ার পর পাসপোর্ট নবায়নের আর কোনো আবেদন তারেক করেননি। এই মূহূর্তে তিনি কোন্‌ ইমিগ্রেশন স্ট্যাটাসে লন্ডনে আছেন, এ বিষয়টি তারেক বা তার দল কখনও পরিষ্কার না করলেও বিভিন্ন সূত্রের তথ্যমতে, রাজনৈতিক আশ্রয় নিয়েই তিনি অবস্থান করছেন ব্রিটেনে। 


মেয়াদ শেষে নিজ দেশের পাসপোর্ট নবায়ন না করায় পাসপোর্টবিহীন হলেও রাজনৈতিক আশ্রয়ে থাকায় জেনেভা কনভেনশন অনুযায়ী ব্রিটেনের রাষ্ট্রীয় সুরক্ষাতেই তিনি বসবাস করছেন লন্ডনে। 


সূত্রগুলো জানায়, ব্রিটিশ হোম অফিসের পক্ষ থেকে তারেককে দেওয়া হয়েছে ট্রাভেল ডকুমেন্ট, যেটি দিয়ে বিশ্বের অন্যান্য দেশেও সফর করতে পারবেন তিনি। শুধু তাই নয়, রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী হিসেবে ব্রিটিশ সরকারের দেওয়া অন্যান্য সুযোগ-সুবিধাও তিনি ভোগ করতে পারেন, যদি এগুলোর জন্যে তিনি আবেদন করেন।


এই সুবিধাগুলোর মধ্যে রয়েছে বাড়িভাড়া, কাজে না থাকলে বেকার ভাতা, স্বাস্থ্যসেবা, সন্তানের ফ্রি স্কুল-সুবিধা, কাউন্সিল ট্যাক্স বেনিফিট ইত্যাদি।


অবশ্য এসব সুবিধা তারেক কতটুকু নিচ্ছেন তা নিয়ে কমিউনিটিতে বিভিন্ন গুজব-গুঞ্জন থাকলেও তারেক বা তার দলের স্থানীয় নেতাদের কাছ থেকে এবিষয়ে নিশ্চিত কিছু জানা সম্ভব হয়নি।


তার নির্বাসন জীবন শুরু থেকেই বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ধরনের খবর বাজারে ছড়িয়েছে। ‘নিজের রাজকীয় প্রাসাদে আছেন তারেক’, ‘কাউন্সিল ট্যাক্স জালিয়াতিতে অভিযুক্ত তারেক’, ‘লন্ডনে তারেকের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ হচ্ছে’ এমন খবর নিয়মিতই ছড়াচ্ছে। 


সবশেষ একটি খবর ছড়িয়েছে, আগামী ১ এপ্রিল দেশের ২০০টি স্পটে একযোগে হামলা চালানোর একটি পরিকল্পনা করেছেন তারেক রহমান। যার নাম দেওয়া হয়েছে ‘মিশন এপ্রিল ফুল’।   


অবশ্য এই অভিযোগগুলো শুধুই তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার বিএনপি’র স্থানীয় নেতারা এমনটি দাবি করলেও এগুলো অস্বীকার করে তারা আনুষ্ঠানিকভাবে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমগুলোতে কোনো প্রতিক্রিয়াও  দেননি তারেকের পক্ষে।


ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষার বিষয়টি ব্রিটিশ সোসাইটিতে খুবই গুরুত্বসহ দেখা হয় বলে, সংশ্লিষ্ট বিভাগের কাছ থেকে তারেক রহমানের ব্রিটেন বসবাসের অফিসিয়াল বিস্তারিত তথ্য জানা সম্ভব নয়। 


তবে গ্রেটার লন্ডনের কিংস্টোনের মত ব্যয়বহুল এলাকায় একটি ব্যয়বহুল বাড়িতেই বসবাস করছেন তারেক রহমান। এ ব্যাপারে নিশ্চিত হয়েছে বাংলানিউজ। 

  

বাংলাদেশ সময় ১১৪২ ঘণ্টা, মার্চ ১৫, ২০১৫

 

,

Share this post

scroll to top
error: Content is protected !!