DMCA.com Protection Status
সাফল্যের ১১ বছর

জেঃ মঈনের দোষর নিজামের সঙ্গীত সন্ধ্যায় জাতীয়তাবাদীদের ভীড়ঃ এ কিসের আলামত???

nizam1ক্যাপ্টেন(অবঃ)মারুফ রাজুঃ যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে গেলো সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ফ্রেন্ডস এন্ড ফ্যামিলীর নিজাম উদ্দীনের আয়োজনে জাসাস নেত্রী ও বিশিষ্ট সংগীত শিল্পী বেবি নাজনীন এর একক সংগীত সন্ধ্যা। বিনা দর্শনীতে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে ছিলো দর্শকদের উপচে পড়া ভীড় আর এর সিংহভাগই ছিলো প্রবাসের বিএনপির চেতনায় বিশ্বাসী নেতা কর্মীরা। এছাড়াও এই অনুষ্ঠানে বিপুল সংখ্যক আওয়ামী সমর্থকদের উপস্থিতিও লক্ষ্য করা গেছে।

nizam2এই বিশাল ব্যয়বহুল অনুষ্ঠানটি কেনো এবং কি উদ্দেশ্যে বিনা দর্শনীতে আয়োজন করলো এই নিজামউদ্দীন ??? কে এই নিজাম উদ্দীন এবং বিএনপির সাথে কি বা তার সম্পর্ক? কেনোই বা তার আয়োজিত অনুষ্ঠান টিকে জাতীয়তাবাদীদের মহা মিলনমেলা আখ্যায়িত করলো সংস্কারপন্থি ও বিএনপি থেকে বহিস্কৃত নেতা এম এম শাহিনের মালিকানাধীন সাপ্তাহিক ঠিকানা পত্রিকা ???

খোজ নিয়ে জানা যায়, এই নিজামউদ্দীন ১/১১ এর কুখ্যাত কুশিলব জেনারেল মঈন ইউ আহমেদের অত্যন্ত ঘনিষ্ট এবং কাছের জন। ১/১১ এর অবৈধ তত্বাবধায়ক সরকারের সময় বাংলাদেশকে বিরাজনীতিকরনে তারও যথেষ্ট ভূমিকা ছিলো। ঐসময় তিনি জাগো বাংলাদেশ (কিংস পার্টি) নামে একটি রাজনৈতিক দল গঠন করে সরাসরি বিএনপির কুৎসা রটনায় নেমে পড়েন জেঃ মঈন  এর নির্দেশনায়। এমন কি দেশনায়ক তারেক রহমানের উপর প্রচন্ড নির্যাতনকারী নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের সাথে ঘনিষ্ট সম্পর্ক ছিলো এই নিজাম উদ্দীনের।

যখন তারেক রহমান যখন বন্দী অবস্থায় নির্যাতিত ও নিগৃহিত হচ্ছেন , ঠিক একই সময়ে জেনারেল মঈন ইউ আহমেদের যুক্তরাষ্ট্র সফরকালে গন সম্বর্ধনার আয়োজন করেন এই নিজামউদ্দীন। অথচ আজ এই কুখ্যাত নিজাম উদ্দীনের সংগীত সন্ধ্যায় আসর মাতান বিএনপির বড় বড় প্রবাসী নেতারা !!!

অপর দিকে যেই মুহূর্তে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় আদালতে টানা হ্যাচরা করা হচ্ছে  এবং দেশনায়ক তারেক রহমানের নামে ডজন ডজন ভিত্তিহীন মামলা করা হচ্ছে ,  সেই মুহূর্তে এর প্রতিবাদ প্রতিরোধ না করে বিএনপির প্রতি চরম বিদ্বেষ পোষনকারী বিতর্কিত ব্যক্তির আয়োজনে  সংগীত জলসায় মজে থাকা বিএনপির নেতাদের উচিৎ হচ্ছে কিনা তা ভেবে দেখা দরকার ।

ঐ সময় জেনারেল মঈনের নিকটজন হওয়ার সুবাদে তিনি প্রভূত আর্থিক ও অন্যান্য সুবিধাদীও অর্জন করেন বলে জানা যায়।বর্তমানে নিউইয়র্কে অবস্থানরত জেনারেল মঈনের সঙ্গে তার সুসম্পর্ক এখনও বিদ্যমান।বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত  বিএনপির আরেক বিতর্কিত নেতা ও ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার এই অনুষ্ঠানে যাওয়ার কথা ঢাক ঢোল পিটিয়ে প্রচার করা হলেও  জনাব খোকা শেষ পর্যন্ত ঐ অনুষ্ঠানে যাননি।

nizam3শুধু তাই নয় অতি সন্তপর্নে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক বহু নেতার কাছেও এই নিজামউদ্দীন ভিড়ে যেতে সমর্থ হন।গত সপ্তাহের এই সংগীত সন্ধ্যা তার প্রকৃষ্ট উদাহারন। অথচ যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত বিএনপির সাবেক দুই মন্ত্রী জনাব ওসমান ফারুক এবং এহছানুল হক মিলন বহু অনুরোধ ও আমন্ত্রনের পরও  ঐ অনু্ষ্ঠানে যেতে অপারগতা প্রকাশ করেন বলে জানা যায়।

 এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী অনেকের প্রশ্ন হচ্ছে, বিএনপির বিরুদ্ধে প্রাকাশ্য ষড়যন্ত্রকারী মঈন ইউ আহমেদের দোষররা কিভাবে বিএনপির নেতাকর্মীদের সুহৃদ হতে পারে ? 

দেশনায়ক তারেক রহমানের উপর অমানুষিক নির্যাতনকারীদের দোষররা কিভাবে বিএনপির হিতাকাংখী হতে পারে ?

অথচ কে না জানে ১/১১ এর অবৈধ সরকারের  পরবর্তিতে সাজানো নির্বাচনে ক্ষমতায় আসে  হাসিনা সরকার। এক অর্থে ১/১১ এর সরকার এবং শেখ হাসিনার সরকার সমার্থক হয়ে তাদের একক শত্রু বিএনপির বিরুদ্ধে কাজ করেছে এবং এখনও করে যাচ্ছে । এসব স্বার্থান্বেসী কুখ্যাত নিজাম উদ্দীনরা শেখ হাসিনা সরকারের হয়ে বিএনপি বিরুদ্ধে কাজ করছে কিনা এই নিয়ে প্রবাসীদের মনে ব্যপক প্রশ্ন দেখা দিয়েছে আজ ।

এমতাবস্থায় বিএনপির নিবেদিত প্রান নেতা কর্মীদের এ ধরনের বর্নচোরা লোকজনের থেকে আরও সাবধান হওয়া উচিৎ । প্রবাসে এধরনের সংগঠন বিরোধী কার্যকলাপ অব্যাহত রেখে আগামীতে বিএনপি ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্ন দেখে কিভাবে ???
 

Share this post

scroll to top
error: Content is protected !!