DMCA.com Protection Status
ADS

জোড়া খুনের অভিযোগে এমপি পিনু খানের পূত্র কারাগারেঃশিঘ্রীই ছাড়া পাবার হুমকি?

pinuদৈনিক প্রথম বাংলাদেশ প্রতিবেদনঃ রাজধানীতে গভীর রাতে গুলি করে দু’জন নিহতের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) ও সংরক্ষিত আসনের এমপি পিনু খানের ছেলে বখতিয়ার আলম রনিকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

চার দিনের রিমান্ড শেষে শনিবার তাকে আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় রিমান্ড আবেদন না করে মামলা শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন জানান মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের এসআই দীপক কুমার দাস।

অন্যদিকে তার আইনজীবী এ্যাডভোকেট শওকত ওসমান জামিন আবেদন করেন। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম আসাদুজ্জামান নূর তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

জামিন শুনানির জন্য ১৬ জুন দিন ধার্য করেন। ১৩ এপ্রিল রাত পৌনে ২টার দিকে রাজধানীর নিউ ইস্কাটনে একটি কালো রঙের প্রাডো গাড়ি থেকে এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়লে তাতে অটোরিকশাচালক ইয়াকুব আলী ও রিকশাচালক আবদুল হাকিম আহত হন। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তারা।

এ ঘটনায় নিহত হাকিমের মা মনোয়ারা বেগম অজ্ঞাত পরিচয় কয়েকজনকে আসামি করে ১৫ এপ্রিল রাতে রমনা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ২৪ মে মামলার তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগকে (ডিবি)। তদন্তভার পাওয়ার পর ৩১ মে এলিফ্যান্ট রোডের বাসা থেকে বখতিয়ার আলম রনিকে আটক করে ডিবি পুলিশ।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীদের  বিবরনে জানা যায়,প্রাক্তন জাতীয় নৃত্যশিল্পী ও হালের আওয়ামী এমপি পিনু খানের ছেলে রনি একজন মানকাসক্ত এবং অত্যন্ত উশৃংখল প্রকৃতির ব্যক্তি।বিপুল বিত্ত-বৈভব ব্যবহার করে সে ধরা কে সরা জ্ঞানে অভ্যস্ত ছিলো।ঘটনার দিন দির্ঘক্ষন যানজটে অপেক্ষা করে সে বিরক্ত ও ক্ষিপ্ত হয়ে তার লাইসেন্সকৃত পিস্তল দিয়ে এলোপাথারী গুলি চালালে এই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে।তবে পুলিশ হেফাজতে বারংবার এই এমপি পূত্র ঔধ্বত্বের সাথে বলেছে.তাকে আটকে রাখার সাধ্য পুলিশের নেই।আমাদের আশংখা পরিস্থিতি শান্ত হলে এই মামলা ধামাচাপা দিয়ে এই খুনীকে ছাড়িয়ে আনা হতে পারে।

Share this post

scroll to top
error: Content is protected !!